সব খরচ করার পরেও ৩-৪ লক্ষ টাকা প্রফিট, নিজের হাতে করলে লাভ আরও বেশি

চাকরি করার পাশাপাশি এখন অনেকে উপার্জন করার বিকল্প ব্যবস্থার সন্ধানে থাকেন। আবার অনেকে চাকরি পান না। বেকারত্ব সমস্যা এখনও মাথা ব্যাথার অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এই…

Published By: Pritam Santra | Published On:
Advertisements

চাকরি করার পাশাপাশি এখন অনেকে উপার্জন করার বিকল্প ব্যবস্থার সন্ধানে থাকেন। আবার অনেকে চাকরি পান না। বেকারত্ব সমস্যা এখনও মাথা ব্যাথার অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এই পরিস্থিতি ব্যবসা করা সবথেকে ভালো উপায়। অল্প পুঁজি নিয়েও ভালো ব্যবসা শুরু করা যায়। নিজের জায়গা থাকলে তো আর কোনো কথাই নেই। আজ আমরা এমন একটি ব্যবসার কথা বলবো, যেখান থেকে আয় হতে পারে ৩-৪ লক্ষ টাকা। চাকরি করার পাশাপাশি এই ব্যবসা চালানো যেতে পারে। কয়েক মিনিটের কাজ।

Advertisements

এই প্রতিবেদনে আমরা আলোচনা করছি পুকুরে মাছ চাষ করার ব্যাপারে। যাদের নিজের পুকুর রয়েছে তাদের জন্য আরও ভালো সুযোগ। প্রাথমিক খরচ কিছুটা কমে যাবে। যাদের নিজের পুকুর নিয়ে তারাও এই কাজ করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে পুকুর লিজে নিতে হবে। মোটামুটি ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মূলধন থাকলেই পুকুরে মাছ চাষ করা শুরু করা যেতে পারে।

Advertisements

মাছ চাষের আয় ব্যয়ের হিসেবে মূলত ১ বিঘা সমান পুকুর হিসেবে করা হয়ে থাকে। এখানেও সেই হিসেবেই আপনার সামনে তুলে ধরা হয়েছে। রুই, কাতলা মাছের ডিমান্ড বাজারে সব সময় থাকে। এক কেজি সমান মাছ থেকে আয় হতে পারে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা। এবার যত মাছ পুকুরে চাষ করতে পারবেন লাভ তত বেশি। রুই, কাতলা ছাড়াও বিভিন্ন কার্প মাছ চাষ করতে পারেন। এছাড়া আপনি চাইলে মৃগেল, সিঙ্গি জাতীয় মাছের চাষ করা সম্ভব।

pond fish farming

মাছ প্রতিপালনে মাথা ব্যাথা কম। কারণ খুব বেশি কিছু করার থাকে না। রোজকার কিছু খাবার মাছেদের জন্য দেওয়া হয়। সেটা দিতে বড়জোর ১০-১৫ মিনিট সময় সময় লাগবে। এছাড়া বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মেনে মাসে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বার তিনেক দিতে হবে জৈব সার এবং রাসায়নিক সার। কারণ যদি একম ১০ টা পুকুর থাকে তাহলে নিট আয় হতে পারে ৩-৪ লক্ষ টাকা। মাসিক হিসেবে শ্রমিকদের খরচ, সারের খরচ, খাবারের খরচ, লিজ নেওয়া থাকলে লিজের খরচ দেওয়ার পরেও মাস প্রতি ৩ থেকে ৪ লক্ষ টাকা মাছ চাষ করে আয় করা সম্ভব। পাশাপাশি অন্য কাজও আপনি অনায়াসে করতে পারবেন।

Advertisements