অগ্নিমূল্যর বাজারে সরকারের আশীর্বাদ, কিছু দিনের মধ্যেই অ্যাকাউন্টে ঢুকবে টাকা

ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বর্ষাকাল শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু বৃষ্টি রাণীর আশীর্বাদ সবার ওপর বর্ষিত হয়নি। তবে কেন্দ্রীয় সরকারের আশীর্বাদ হয়তো খুব তাড়াতাড়ি উদ্ধার করবে মধ্যবিত্ত পরিবারকে।…

Published By: Pritam Santra | Published On:
Advertisements

ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বর্ষাকাল শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু বৃষ্টি রাণীর আশীর্বাদ সবার ওপর বর্ষিত হয়নি। তবে কেন্দ্রীয় সরকারের আশীর্বাদ হয়তো খুব তাড়াতাড়ি উদ্ধার করবে মধ্যবিত্ত পরিবারকে। এই অগ্নিমূল্য বাজারে ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে চলেছে সরকার।

Advertisements

কেন্দ্রীয় সরকার দেশের ১২ কোটি কৃষককে আরও একবার বড়রকমের উপহার দিতে চলেছে, যা নিয়ে ইতিমধ্যে আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে। মনে করা হচ্ছে, সরকার তাড়াতাড়ি পিএম কিষান সম্মান নিধি প্রকল্পের পরবর্তী অর্থাৎ ১৪তম কিস্তির ২,০০০ টাকা পাঠাতে চলেছে। এর আগে সরকার কৃষকদের ২,০০০ টাকা করে ১৩টি কিস্তির টাকা পাঠিয়েছিল। প্রথম বর্ষার বৃষ্টি যেমন কৃষকদের জন্য আনন্দ বয়ে আনে, তেমনই এই সময়ে কিস্তির টাকা ঢুকলে সেটা আশীর্বাদের থেকে কোনো অংশে কম হবে না। সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে কিস্তির টাকা পাঠানোর তারিখ ঘোষণা না করলেও গণমাধ্যমের খবরে দাবি করা হচ্ছে যে টাকা ঢুকতে পারে আগামী ১৫ জুলাই।

Advertisements

কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকার যে পিএম কিষান সম্মান নিধি প্রকল্প চালু করেছে তা মুদ্রাস্ফীতির বাজারে কিছুটা হলেও মধ্যবিত্তদের স্বস্তির নিশ্বাস নেওয়ার অবকাশ দিচ্ছে। জনকল্যাণ প্রকল্পের আওতায় সরকার বছরে ২,০০০ টাকার তিনটি কিস্তিতে ৬,০০০ টাকা ব্যাংকে পাঠায়। মূলত ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষকদের কথা ভেবে এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

PM Kishan Nidhi

প্রতি চার মাস পর পর সরকার কিস্তির টাকা কৃষকদের অ্যাকাউন্টে জমা দেয়। প্রায় ১২ কোটি কৃষক এই প্রকল্পের সুবিধা নিচ্ছেন। কৃষকদের আর্থিকভাবে সমৃদ্ধ করার জন্য সরকার এই প্রকল্প চালু করেছে, যাতে তারা ফসলের যত্ন নেওয়ার জন্য কারও কাছ থেকে ঋণ না নেয়। অন্যদিকে কৃষক সংগঠনগুলো কিস্তির পরিমাণ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছে। কিন্তু সরকার এখনো তা চূড়ান্ত করেনি।

আপনি যদি পিএম কিষান সম্মান নিধি প্রকল্পের পরবর্তী কিস্তি নিতে চান তবে প্রথমে ই-কেওয়াইসি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করুন। যদি এই কাজটি না করেন তবে কিস্তির টাকা মাঝখানে আটকে যাবে, ফলে কৃষকদের ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে। ই-কেওয়াইসি করাতে হলে পাবলিক সার্ভিস সেন্টারের সাহায্য নিতে হবে। এটাই হবে আপনার প্রথম কাজ।

Advertisements